স্পিরিট ব্যবসায়ী রফিকুল আটক, রিমান্ড আবেদন

ঈদের রাতে বন্ধুদের সাথে আড্ডায় রেক্টিফাইট স্পিরিট পানে দিনাজপুরের বিরামপুর স্বামী-স্ত্রীসহ ১০ জনকে হত্যার অভিযোগে করা মামলায় স্পিরিট ব্যবসায়ী ও হোমিও চিকিৎসক রফিকুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করেছে থানা পুলিশ। পরে তাকে ৭ দিনের রিমান্ড আবেদনসহ শনিবার সকালে তাকে দিনাজপুর কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ। আটক রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে বিরামপুর থানায় ৩টি এবং ফুলবাড়ি থানায় ১টি মামলা রয়েছে। বিরামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুজ্জমান মনির বিষয়টি কালের কণ্ঠকে নিশ্চিত করেছেন।

শুক্রবার রাত ১১টায় বিরামপুর পৌরশহরের পূর্বজগন্নাথপুরের বকুলতলা মোড় মহল্লার নিজ বাড়ি থেকে স্পিরিট ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলামকে আটক করে পুলিশ। আটক রফিকুল ইসলাম ওই এলাকার মৃত সিরাজুল ইসলামের ছেলে। মামলা হওয়ার পরও রফিকুল ইসলাম উপজেলা শহরের বিভিন্নস্থানে স্পিরিট ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছিল।

বিরামপুর থানা সুত্রে জানাযায়, আটক স্পিরিট ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলামে নামে ২০০৮, ২০১২ এবং ২০১৬ তিনটি মাক মামলা রয়েছে। এ ছাড়াও গত ২৭ মে তার নামে স্পিরিট পানে ১০ জনকে হত্যার অভিযোগে একটি মামলা হয়।

বিরামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুজ্জামান মনির বলেন, গ্রেপ্তার রফিকুলের ইসলামের বিরুদ্ধে অবৈধভাবে রেক্টিফাইড স্পিরিট ব্যবসার অভিযোগে বিরামপুর থানাসহ পার্শ্ববর্তী থানায় বেশ ৪টি মামলা রয়েছে। এসব মামলা থাকার পরও তিনি গোপনে অবৈধভাবে স্পিরিটের চালিয়ে যাচ্ছিলেন। স্পিরিট পানে ১০ জনকে হত্যা মামলার অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

বিরামপুর সার্কেলের সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার মিথুন সরকার বলেন, হোমিও চিকিৎসা সেবার আড়ালে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী অবৈধভাবে রেক্টিফাইট স্পিরিট ব্যবসা করছিলেন। আর তাদের ব্যবসার সুযোগে গত ঈদের রাতে রেক্টিফাইড স্পিরিটের সাথে বিভিন্ন নেশাজাত দ্রব্য মিশিয়ে পান করে ১০ জনের মৃত্যু হয়। বিরামপুর পুলিশ এসব অবৈধ ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের দ্রুত আইনের আওতায় আনার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *