মার্বেল গোল্ড ডিজাইনে দুই টনের নতুন ভেঞ্চুরি এসি

যারা এসিতে একটু টেক্সচার ধাচের ডিজাইন পছন্দ করেন; তাঁদের জন্য সেরা পছন্দ হতে পারে, ওয়ালটন এর ভেঞ্চুরি সিরিজের দারুন ডিজাইনএর স্প্লিট এসি। বাসা হোক কিনবা অফিস মারবেল টেক্সচারে দারুন এই স্প্লিট এসিটি কাজের পাশাপাশি আপনার রুমের সৌন্দর্য বর্ধনে অনেকাংশে ভুমিকা রাখবে। আজকের আর্টিকেলে আমরা দুইটনের দারুন এই এসিটি সম্পর্কে আলোচনা করব।
• মডেলঃ WSN-VENTURI (Marble-Gold)-24B
• ওয়াটঃ 7034
• বিটিইউঃ 24000 BTU
• দামঃ 58,900

এসিটি ওয়ালটনের বিশেষ আইওনাইজার প্রযুক্তিতে তৈরি। আইওনাইজার বলে এই এসিকে বলা হচ্ছে আপনার ফুসফুসের ডাক্তার। এখানে এসিটি বাতাসে নেগেটিভ আয়ন ত্যাগ করে, যা বাতাসের ভেতর বিদ্যমান অতিক্ষুদ্র ধূলিকণা, ধোয়া, ব্যক্টেরিয়া এসব দূর করে। এই নন-ইনভার্টার এসিটি কম পরিমানে নয়েস সৃষ্টি করে, যার ফলে রাতে ঘুমানোর সময়েও অনাকাঙ্ক্ষিত যান্ত্রিক শব্দ কানে লাগে না।

এসিটি মাল্টি ডাইরেকশনে বাতাস প্রবাহ করতে সক্ষম। অনেক এসি কেবল এক দিকে বাতাস প্রবাহ করে আবার কিছু এসি আবার কেবল দুই দিকে , এর ফলে যারা কেবল এসির সামনে থাকে তারাই বাতাস পায়, ঘরের কোনায় বা অন্য কোন স্থানে থাকা কেউ বাতাস উপভোগ করতে পায় না। তবে ভেঞ্চুরি এসির মাল্টি ডাইরেকশনে বাতাস প্রবাহ করার ফলে সব দিকেই প্রায় সমান শীতল বাতাস প্রবাহিত করা যাবে।

এই এসিতে আপনি পাবেন ১৬ থেকে ৩১ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত তাপমাত্রা বাছাই করার রেঞ্জ। অনেক এসিতে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা পাওয়া যায় ১৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস, তবে এতে সর্বনিম্ন ১৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত পাবেন।

ঘর কতোটা এবং কত দ্রুত ঠাণ্ডা হবে তা নির্ভর করে এসির ভেতর থাকা ফ্যানের ওপর। এই ফ্যান যত বেশি বড় হবে, এই এসিকে এর ফলে তত বেশি কার্যকর বলা যাবে। এই এসিটিতে থাকছে তুলনামূলক বড় ক্রস ব্লো ফ্যান। আর এর ফলে বাজারের অন্য সব এসির চাইতে এই এসিটির কুলিং স্পিড হবে ৪০% বেশি। আর এই ক্রস ব্লো ফ্যানটি অতো বেশি নয়েসি নয়, খুবই সাইলেন্টলি এর কাজ করে যায়।

শুধু এসি কিনলেই কি হবে? সেই এসিটি কতোটা বিদ্যুৎ খরচ করবে? আর আদৌ সেটি কতোটা বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী হবে এই বিষয়টি বিবেচনা করতে হবে। বিদেশের সাথে বাংলাদেশ এর ইলেক্ট্রিসিটির মাত্রা ঠিক নয়, আর সে এসিগুলো তাদের দেশের জন্য উপযোগী করে বানানো। ফলে সেই সব এসি আমাদের জন্য ভালো হচ্ছে কিনা তা কেনার আগে বোঝার উপায় থাকে না। আর এই কারণে পরে ফাঁকিতে পড়তে হয়।

এসির মত উচ্চ ওয়াটএর যন্ত্রের ক্ষেত্রে কোইফিসিয়েন্ট অফ পারফর্মেন্স খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। একটি এসির কোইফিসিয়েন্ট অফ পারফর্মেন্স পয়েন্ট যতো ভালো হবে, এসিটি ঠিক ততো কর্মদক্ষতা সম্পন্ন এবং বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী হবে। আর এই দিক থেকেও ভেঞ্চুরি এসিটি সঠিক অবস্থানে আছে।

সাম্প্রতিক সময়ে আমাদের বাংলাদেশ এর আবহাওয়া উপযোগী নিত্যনতুন সব এসি তৈরি করছে ওয়ালটন। বিদেশ থেকে আমদানি করে নিয়ে আসা এসিতে সাধারণত সঠিক বিটিইউ থাকে না। সাধারণত যা ক্রেতাদের পক্ষে ধরা সম্ভব হয় না। তবে দেশেই তৈরি করছে বলে ওয়ালটন তাদের সকল এসিতে সঠিক বিটিইউ নিশ্চিত করছে। ওয়ালটন এর অন্যসব এসির মত এই ভেঞ্চুরি এসিতেও তার ব্যাত্তয় ঘটেনি।


ভেঞ্চুরি সিরিজের এই এসিটি দেখতে এবং এসিটি সম্পর্কে আরো জানতে আপনি চলে যেতে পারেন আপনার পাশের যেকোনো ওয়ালটন প্লাজায়। ওয়ালটন এসিতে রয়েছে ৬ মাসের রিপ্লেসমেন্ট গ্যারান্টি। আরো পাবেন ৩ বছর পর্যন্ত ফ্রি বিক্রয়োত্তর সুবিধা। বর্তমানে সারা দেশে আইএসও সনদপ্রাপ্ত ওয়ালটন সার্ভিস ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম কর্তৃক পরিচালিত ৭২টি সার্ভিস সেন্টার রয়েছে। সুতরাং অনাকাঙ্ক্ষিত সমস্যা এবং বিক্রয়ত্তর সেবা নিয়ে আপনাকে কোন চিন্তা করতে হবেনা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *