বিতর্কিতদের তালিকা করেছে আওয়ামী লীগ

তালিকায় থাকা ব্যক্তিদের বিষয়ে সতর্ক থাকতে দলটির বিভিন্ন শাখা ও সহযোগী সংগঠনের দায়িত্বশীলদের নির্দেশনা দেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

দলের জাতীয় সম্মেলনের পাশাপাশি সহযোগী বিভিন্ন সংগঠনের কেন্দ্রীয় সম্মেলনের আগে বৃহস্পতিবার ঢাকার ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলটির সম্পাদকমণ্ডলী সভা শেষে একথা জানান তিনি।

ক্যাসিনো বন্ধের অভিযানে যুবলীগের নানা নেতার জড়িত থাকার তথ্য প্রকাশের পর দলে অনুপ্রবেশকারী ও বিতর্কিতদের বিতাড়িত করার দাবি ক্ষমতাসীন দলটিতে জোরেশোরে উঠেছে।

কাদের বলেন, “বিতর্কিত কোনো ব্যক্তি আওয়ামী লীগের কাউন্সিলে আসতে পারবে না। সহযোগী সংগঠনেও যেন কোনো বিতর্কিত ও অনুপ্রবেশকারী প্রবেশ করতে না পারে, যেজন্য যথেষ্ট সতর্ক আছি।”

চিহ্নিত করার বিষয়ে তিনি বলেন, “নেত্রী তার নিজস্ব কিছু লোকজনকে দিয়ে এবং গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্ট-সব মিলিয়ে অনুপ্রবেশকারীদের একটি তালিকা অলরেডি করেছেন এবং সেটি পার্টি অফিসে পাঠিয়ে দিয়েছেন।

“আমি আমার বিভাগীয় নেতৃবৃন্দের সঙ্গে বিষয়টি শেয়ারও করেছি। তারা এই তালিকা নিয়ে বিভিন্ন শাখা ও সহযোগী সংগঠনের যে সম্মেলন হচ্ছে, সেখানে বিতর্কিত ও অনুপ্রবেশকারী হিসেবে যাদের নাম আছে, তারা যেন কমিটিতে আসতে না পারে, সেই ব্যাপারে সতর্ক থাকবে এবং ব্যবস্থা নেবে।”

বিতর্কিত ও অনুপ্রবেশকারীদের যে তালিকা করা হয়েছে সেখানে কতজনের নাম আছে- জানতে চাইলে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, “সব বিভাগেই কমবেশি আছে। তবে নির্দিষ্টি সংখ্যা বলতে পারছি না। পরের মিটিংয়ে বলব।”

আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনগুলোর সম্মেলনে গঠনতন্ত্রেন বিধান মেনে চলার নির্দেশ দেন ওবায়দুল কাদের।

“গঠনতন্ত্রবিরোধী কোনো কর্মকাণ্ড করা যাবে না। গঠনতন্ত্রবিরোধী কোনো পদক্ষেপ নেয়া যাবে না। নতুন কমিটি করার ক্ষেত্রে গঠনতন্ত্রের বিষয়টি মাথায় রাখতে হবে। গঠনতন্ত্রের বিধান মেনে কমিটির আকার করতে হবে।”

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ‘মুজিব বর্ষ’কে সামনে রেখে একটি বর্ণাঢ্য, সুশৃঙ্খল সম্মেলন করার প্রত্যয় জানান আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক।

মেয়াদোত্তীর্ণ ২৭টি জেলায় সম্মেলনের তারিখ নির্ধারণের কথা জানিয়ে তিনি বলেন, “বেশ কিছু উপজেলায় মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি আছে। সেগুলোরও সম্মেলনের প্রস্তুতি চলছে।”

জাতীয় সম্মেলনের প্রস্তুতি অনেকটাই গুছিয়ে আনা হয়েছে জানিয়ে কাদের বলেন, “সম্মেলন সঠিক সময়ে হবে। ২০ ডিসেম্বর উদ্বোধন অনুষ্ঠান এবং ২১ ডিসেম্বর কাউন্সিল অধিবেশন।”

গত তিন বছরের যতগুলো প্রতিনিধি সভা হয়েছে, এত প্রতিনিধি সভা আওয়ামী লীগের ইতিহাসে কখনও হয়নি বলে দাবি করেন দলটির সাধারণ সম্পাদক। এই সময়ে অনুষ্ঠিত নির্বাচনগুলোতে আওয়ামী লীগের জয়জয়কারের কথাও বলেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *