Myna

“পোস্টমর্টেম” বাংলায় কেন “ময়নাতদন্ত”?

আপনি জানেন কি? পোস্টমর্টেম কে বাংলায় কেন ময়নাতদন্ত বলা হয়। আগে কি কখনো ভেবে দেখেছেন?

কেউ খুন হলে তার লাশের পোস্টমর্টেম করা হয় সেটা আমরা সবাই জানি। বাংলায় তাকে ময়নাতদন্ত বলে। কিন্তু কেন?

পোস্টমর্টেম বা ময়নাতদন্ত একটি খুনের মূল কারণ বের করে। কিভাবে মানুষটি খুন হয়েছে সে কারণ একমাত্র পোস্টমর্টেম বা ময়নাতদন্তে বেরিয়ে আসে। প্রশ্ন ময়না একটি পাখির নাম কেন?  তবে কি ময়নাতদন্তের সাথে ময়না পাখির কোন মিল আছে?

যদি আপনি ভেবে থাকেন, কিন্তু কারণটা জানা হয়নি তবে আজকে জানবেন। কারণটি হল ময়না পাখি দেখতে কালো হয়ে থাকে। যদিও ঠোঁট হলুদ হয়ে থাকে। এ পাখি প্রায় ৩-১৩ রকমে ডাকতে পারে। অন্ধকারে এই পাখিকে দেখা দুষ্কর।

সাধারণত ময়না পাখি অন্ধকারে নিজেকে লুকিয়ে রাখে। যারা ময়নার ডাক বুঝেন কেবল তারাই বুঝতে পারেন ময়না পাখি ডাকছে। এখানে ময়না পাখি আছে। যদি আপনি ময়নার সে ডাক গুলির সাথে পরিচিত না হন, তবে আপনি বুঝবেন না কোন পাখি ডাকছে।

অন্ধকারে যেমন ময়না না দেখে শুধু তার ডাক শুনে তার অস্তিত্ব বুঝা যায়, ঠিক পোস্টমর্টেম বা ময়নাতদন্তেও খুন না দেখে খুনের কারণ বা অন্ধকারে থাকা অজানা কারণ গুলি আবিস্কার করা যায়।

সামান্য সূত্র থেকে বের হয় বড় কোন রহস্যের। খুঁজে পাওয়া যায় প্রকৃত খুনিকে। আর সে কারণেই পোস্টমর্টেমকে বাংলায় ময়নাতদন্ত বলা হয়।

 

Comments

comments