আমি শুধু যৌন চাহিদার বস্তু রয়ে গেলাম। ক্রিকেটার শহীদের স্ত্রী

বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের নারীঘটিত খবর প্রায় শোনা যাচ্ছে। এবারো এমন একটা অভিযোগ নিয়ে হাজির হলেন ক্রিকেটার শহীদের স্ত্রী ফারজানা আক্তার বিবিসির অফিসে।

তাঁর উপর নির্যাতনের বর্ণনা দিয়ে বিবিসির সভাপতি বরাবর ন্যায় বিচার চেয়ে ৪ পৃষ্ঠার লিখিত অভিযোগ দেন তিনি।

এতে তিনি স্ত্রী ও সন্তানের মর্যাদা দাবি জানিয়ে তিনি লিখেন, “একাদিক তরুণীর প্রতি আসক্ত হওয়ার পর তাঁর অবস্থা এখন এমন হয়েছে যে, যখন তাঁর শারীরিক চাহিদার প্রয়োজন হতো তখন সে আমার কাছে আসতো। আমি অসুস্থ থাকলেও আমার উপর জোর করে তাঁর চাহিদা পুরন করতো। এমনটাও হয়েছে গত রমজান মাসে ইফতারের মাত্র ১০ মিনিট আগে সে তাঁর চাহিদার জন্যে জোর করে আমার রোজা নষ্ট করে। আমার ভাল লাগা মন্দ লাগা তাঁর কাছে কোন গুরুত্বই নেই। আমি যেন তাঁর কাছে শুধু যৌন চাহিদার বস্তু হিসেবে রয়ে গেলাম।”

শহিদ কে নিয়ে তিনি আরো লিখেন। সে (শহিদ) তাদের ২য় সন্তান গর্ভে এলে সন্তান নষ্ট করতে চাপ দিতো সে। তাঁর কথা না মানায় তাঁর নির্যাতন আরো বেড়ে যায়।

মেয়েদের সাথে সম্পর্ক এখন তাঁর অভ্যেসে পরিণত হয়েছে। একাদিক মেয়ের সাথে তাঁর সম্পর্ক রয়েছে। এখন যে মেয়ের সাথে তাঁর সম্পর্ক রয়েছে সে ঢাকায় থাকে জানি। তাঁর নাম্বার নেই আমার কাছে কথা হয়নি। আগের গুলির সাথে কথা বলে তাদের সম্পর্ক ভাংতে চেষ্টা করেছি। কিন্তু একটা ভাঙ্গে ২টা সম্পর্ক হয়।

বিবিসি সমস্যার সমাধান করতে পারলে তিনি মামলা করতে চান না। তিনি চান, বিবিসির মাধ্যমে তাদের সমস্যার সমাধান হোক। তাঁর সন্তানদের দিকে তাকিয়ে তিনি স্বামীর সংসার করতে চান। বিবিসি সমস্যার সমাধান করতে না পারলে তিনি আইনি পদক্ষেপ নিবেন।

২০১১ সালের ২৪ জুন তাদের পারিবারিক ভাবে তাদের বিয়ে হয়। বিয়ের পর ১ম ৩টা বছর ভালই কাটছিল তাদের। কিন্তু সমস্যার শুরু হয় শহিদ জাতীয় দলে খেলার পর থেকে।

অবশ্য আগে ক্রিকেটার শহিদ তাঁর স্ত্রীর অভিযোগ ববাবর অস্বীকার করে আসছেন। কিন্তু তাঁর স্ত্রী ফারজানা বিবিসির কাছে লিখিত অভিযোগ করার পর শহীদের এখনো কোন মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

Comments

comments